রোজা ভঙ্গের কারণ - Proshikkhon

রোজা ভঙ্গের কারণ

صيام| The reason for the loss of Siam

পবিত্র কুরআনের সুরাহ আল-বাকারা’র ১৮৭ নং আয়াতে রোজা ভঙ্গের মুলনীতি উল্লেখ করেছেন:

 اُحِلَّ لَکُمۡ لَیۡلَۃَ الصِّیَامِ الرَّفَثُ اِلٰی نِسَآئِکُمۡ ؕ هُنَّ لِبَاسٌ لَّکُمۡ وَ اَنۡتُمۡ لِبَاسٌ لَّهُنَّ ؕ عَلِمَ اللّٰهُ اَنَّکُمۡ کُنۡتُمۡ تَخۡتَانُوۡنَ اَنۡفُسَکُمۡ فَتَابَ عَلَیۡکُمۡ وَ عَفَا عَنۡکُمۡ ۚ فَالۡـٰٔنَ بَاشِرُوۡهُنَّ وَ ابۡتَغُوۡا مَا کَتَبَ اللّٰهُ لَکُمۡ ۪ وَ کُلُوۡا وَ اشۡرَبُوۡا حَتّٰی یَتَبَیَّنَ لَکُمُ الۡخَیۡطُ الۡاَبۡیَضُ مِنَ الۡخَیۡطِ الۡاَسۡوَدِ مِنَ الۡفَجۡرِ۪ ثُمَّ اَتِمُّوا الصِّیَامَ اِلَی الَّیۡلِ ۚ وَ لَا تُبَاشِرُوۡهُنَّ وَ اَنۡتُمۡ عٰکِفُوۡنَ ۙ فِی الۡمَسٰجِدِ ؕ تِلۡکَ حُدُوۡدُ اللّٰهِ فَلَا تَقۡرَبُوۡهَا ؕ کَذٰلِکَ یُبَیِّنُ اللّٰهُ اٰیٰتِهٖ لِلنَّاسِ لَعَلَّهُمۡ یَتَّقُوۡن

“রোযার রাতে তোমাদের স্ত্রীদের সাথে সহবাস করা তোমাদের জন্য হালাল করা হয়েছে। তারা তোমাদের পরিচ্ছদ এবং তোমরা তাদের পরিচ্ছদ। আল্লাহ অবগত রয়েছেন যে, তোমরা আত্নপ্রতারণা করছিলে, সুতরাং তিনি তোমাদেরকে ক্ষমা করেছেন এবং তোমাদের অব্যাহতি দিয়েছেন। অতঃপর তোমরা নিজেদের স্ত্রীদের সাথে সহবাস কর এবং যা কিছু তোমাদের জন্য আল্লাহ দান করেছেন, তা আহরন কর। আর পানাহার কর যতক্ষণ না কাল রেখা থেকে ভোরের শুভ্র রেখা পরিষ্কার দেখা যায়। অতঃপর রোযা পূর্ণ কর রাত পর্যন্ত। আর যতক্ষণ তোমরা এতেকাফ অবস্থায় মসজিদে অবস্থান কর, ততক্ষণ পর্যন্ত স্ত্রীদের সাথে মিশো না। এই হলো আল্লাহ কর্তৃক বেঁধে দেয়া সীমানা। অতএব, এর কাছেও যেও না। এমনিভাবে বর্ণনা করেন আল্লাহ নিজের আয়াত সমূহ মানুষের জন্য, যাতে তারা বাঁচতে পারে।”

এ আয়াতে আল্লাহ তাআলা রোজা-নষ্টকারী প্রধান বিষয়গুলো উল্লেখ করেছেন। সেগুলো হচ্ছে- পানাহার ও সহবাস। এছাড়াও রোজা ভঙ্গের অন্যান্য যে বিষয়গুলো নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাঁর হাদিসে উল্লেখ করেছেন।

রোজা ভঙ্গের কারণসমূহ:

  • সহবাস কিংবা হস্তমৈথুন করা,
  • ইচ্ছাকৃত পানাহার অথবা এমনকিছু খাওয়া যা পানাহারের স্থলাভিষিক্ত যেমন- ধূমপান করা, ইচ্ছাকৃত লোবান বা আগরবাতি জ্বালায়ে ধোয়া গ্রহণ করলে,
  • শিঙ্গা লাগানো কিংবা এ জাতীয় অন্য কোন কারণে রক্ত বের করা,
  • ইচ্ছাকৃতভাবে মুখভরে বমি করা,
  • মহিলাদের হায়েয ও নিফাসের রক্ত বের হওয়া,
  • কুলি করার সময় হলকের নিচে পানি চলে গেলে (অবশ্য রোজার কথা স্মরণ না থাকলে রোজা ভাঙ্গবে না),
  • জবরদস্তি করে কেহ রোজা ভাঙ্গালে,
  • স্যালাইন অথবা ইনজেকশন গ্রহণের মাধ্যমে ঔষধ গ্রহণ করা,
  • সূর্যাস্ত হয়েছে মনে করে ইফতার করার পর দেখা গেল সুর্যাস্ত হয়নি,
  • রাত্রি আছে মনে করে সোবহে সাদিকের পর পানাহার করলে।

রোজা ভঙ্গ হলে করনীয়:

  • বিনা কারণে রোজা ভঙ্গ করলে তাকে অবশ্যই কাজা-কাফফারা উভয়ই আদায় করা ওয়াজিব। যতটি রোজা ভঙ্গ হবে, ততটি রোজা আদায় করতে হবে। কাজা রোজা একটির পরিবর্তে একটি অর্থাৎ রোজার কাজা হিসেবে শুধু একটি রোজাই যথেষ্ট। কাফফারা আদায় করার তিনটি বিধান রয়েছে।
  • একটি রোজা ভঙ্গের জন্য একাধারে ৬০টি রোজা রাখতে হবে। কাফফারা ধারাবাহিকভাবে ৬০টি রোজার মাঝে কোনো একটি ভঙ্গ হলে আবার নতুন করে শুরু করতে হবে।
  • যদি কারও জন্য ৬০টি রোজা পালন সম্ভব না হয় তবে ৬০ জন মিসকিনকে দুই বেলা খাওয়াতে হবে। কেউ অসুস্থতাজনিত কারণে রোজা রাখার ক্ষমতা না থাকলে ৬০ জন ফকির, মিসকিন, গরিব বা অসহায়কে প্রতিদিন দুই বেলা করে পেটভরে খাওয়াতে হবে।
  • গোলাম বা দাসী আজাদ করে দিতে হবে।

কোন কোন ক্ষেত্রে রোজা ভঙ্গ করা যাবে?

কিছু কারণ আছে রমজান মাসে রোজা ভঙ্গ করা যাবে কিন্তু তা অবশ্যই পরবর্তীতে কাজা আদায় করতে হবে। এগুলো হল:

  • শারীরিক অসুস্থতার কারণে অর্থাৎ রোজা রাখলে যদি রোগ বৃদ্ধির আশঙ্কা থাকে,
  • ভ্রমণকালিন তথা মুসাফির অবস্থায়,
  • গর্ভকালিন অবস্থায় ভ্রুণের ক্ষতির সম্ভাবনা থাকলে,
  • বার্ধক্যজনিত কারণে শক্তিহীন থাকলে,
  • ক্ষুধা-তৃষ্ণার কারণে মৃত্যুর আশঙ্কা থাকলে,
  • বিষাক্ত প্রাণী যেমন সাপে কাটলে,
  • মহিলাদের মাসিক হায়েজ-নেফাসকালীন রোজা ভঙ্গ করা যায়।

আরও পোস্ট দেখুন:

Comments (1)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!